1. amd477271@gmail.com : admin : প্রভাত সংবাদ
  2. mdjoy.jnu@gmail.com : dainikbangladesh : Shah Zoy
বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০৫:৪৫ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
কুমারখালীতে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মৌসুমী আক্তার প্রচারণায় এগিয়ে কুমারখালীতে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী তুষারের ব্যাপক জনসংযোগ কুমারখালীর গড়াই রেল ব্রিজের নীচ থেকে এক অজ্ঞাত ব্যক্তির বিবস্ত্র মরদেহ উদ্ধার মহাসড়কে দুর্ঘটনা হ্রাস ও নিরাপত্তা নিশ্চিত কল্পে কুমিল্লা রিজিয়ন কর্তৃক বিশেষ অভিযানে প্রসিকিউশন ১৭০টি, থ্রি হুইলার আটক ৪০টি ও দেড় কাজি গাঁজা সহ গ্রেফতার ১ কুমিল্লা রিজিয়নের ২২ থানার পুলিশ সদস্যদের জন্য ওরস্যালাইন, গ্লুকোজ ও পানি দিচ্ছেন অতিরিক্ত ডিআইজি মো: খাইরুল আলম আতাউর রহমান আতা ভাই কে আবারো জয়যুক্ত করার লক্ষ্যে জীবনের শ্রেষ্ঠ সময়টুকু দিয়ে কাজ করে চলেছেন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আব্দুল কুদ্দুস

জেনে নিন চালকুমড়ার  ১৫ টি ভেষজ গুণ 

  • প্রকাশিত: সোমবার, ৫ জুলাই, ২০২১
  • ২০৮ বার পড়া হয়েছে

প্রভাত সংবাদ ডেস্ক : কাল ও অকালের কুস্মাণ্ড। হতাশা, আক্ষেপ অথবা ঘৃণার পাত্রই যে অকাল কুষ্মাণ্ডের বিশেষণ এ সংস্কার প্রাচীন সংস্কৃত ভাষা ব্যবসায়ীর কাছ থেকে পাওয়া; জীবনে অনেককেই হয়তাে এমন বাক্য শুনতে হয়েছে গুরুজনদের কাছ থেকে। যা হোক আমরা এখন চলে যাব মূল আলোচায়ঃ

বৈদিক সক্তোক্ত তিনটি তথ্য বিশেষ অনুধাবন করার যােগ্য? (১) শরৎ ঋতুতে তােমার বীর্য বৃদ্ধি পায়।
(২) হেমন্ত ও শিশিরে তুমি ওজঃ শক্তিকে ধারণ কর।
(৩) তােমার শিরােভাগের ফলগুলি অসুরের মস্তকে
ক্ষেপণ করা হয়।

তােমার ফল অসুরের মস্তককে চূর্ণ করে এই উপমাবােধক ইঙ্গিতকে উপজীব্য করে বাংলার আয়ুর্বেদিক জগতের শেষ সূৰ্য আচার্য গঙ্গাধর মাথার যন্ত্রণায় এই চাল কুমড়াের রসের সরবৎ খেতে দিতেন। এ সব অনুশীলন আজ অস্তমিত।

চালকুমড়া বা জালিকুমড়া বা জালি এর বৈজ্ঞানিক নাম: Benincasa hispida এই চালকুমড়ায় রয়েছে নানা ভেষজ ও ঔষধি গুনাগুণ:
আয়ুর্বেদের মতে, চাল কুমড়া পুষ্টিকারক বীর্যবর্ধক ও গরিষ্ঠ। রক্তের দোষ অর্থাৎ রক্তবিকার দূর করে, বায়ুর প্রকোপ কমিয়ে দেয়। কচি কুমড়া শীতল ও পিত্তনাশক। তবে মাঝারি মাপের কাঁচা কুমড়াকে কফকারক বলা হয়েছে। চালকুমড়ার ঔষধি ব্যবহার সম্পর্কে নিম্নে উল্লেখ করা হলো:

১. রক্তপিত্ত: রক্ত উঠলেই টি বি হয়েছে যেমন ধরে নেওয়া উচিত নয়, সেই রকম রক্ত পড়লেই অর্শ হয়েছে একথা ভাবাও সমীচীন নয়; বৈদ্যকের ভাষায় এটিও রক্তপিত্ত রোগের অন্তর্গত। এরকম ক্ষেত্রে পাকা চালকুমড়ার রস ৩ থেকে ৪ চা চামচ একটু, চিনি মিশিয়ে খাবেন। রক্ত ওঠা বা পড়া যেটাই হোক না কেনো, বন্ধ হবে। আরও ভালো হয় একটু, বাসক পাতার রস ঐ সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়া।

২. শরীর পুষ্ট করতে: শরীরের ক্ষয়-ক্ষতিতে মাথা হালকা বোধ, মনে কিছু থাকে না, এক্ষেত্রে এর শুকনো শাঁস চূর্ণ (জল নিংড়ে শুকিয়ে নিতে হয়) ২ থেকে ৩ গ্রাম একটু মধু মিশিয়ে খেতে হবে; এটাতে ঐ দোষটা চলে যায়।

৩. প্লুরিসি: (আয়ুর্বেদ মতে এটি বাতশ্লেষ্মজ ব্যাধি) হয়েছে, এক্ষেত্রে এই কুমড়ার রস একটু চিনি মিশিয়ে খেতে হয়।

৪. হৃদ্গত রোগ: হৃদযন্ত্রের বৃদ্ধি হলে বা ঝুলে গেলে কি অসুবিধে হয় সব চিকিৎসকই জানেন। এক্ষেত্রে রোগীকে পাকা চালকুমড়ার হালুয়া খাওয়ানোর অভ্যাস করলে ভালো হবে; তবে হালুয়াতে গরুর থেকে ছাগলের দুধ দিলে ভাল হয়। এই সবজি বলকারক, পুষ্টিকর, ফুসফুসও ভাল রাখে।

৫. কোষ্ঠকাঠিন্যে: বালক বা বৃদ্ধ এই দুজনের একই জ্বালা অর্থাৎ সব রকম দাস্ত পরিষ্কারের ওষুধ খাইয়েও ফল হয় না, এ সময় চিকিৎসক বিভ্রান্ত হন। এক্ষেত্রে বৃহদন্ত্রের শুষ্কতা সৃষ্টি আয়ুর্বেদের নিদান। একে স্বাভাবিক করতে গেলে চালকুমড়ার রস ৪ থেকে ৫ চা-চামচ গরম দুখের সঙ্গে খাওয়াতে হয়। এটাতে প্রস্রাব ও দাস্ত দুটোই পরিষ্কার হয়।

৬. যক্ষ্মা সন্দেহে: প্রাথমিক লক্ষণ সব মিলে যাচ্ছে তখন প্রারম্ভিক চিকিৎসা হিসাবে এই চালকুমড়োর রস ৪ থেকে ৫ চা-চামচ একটু চিনি ও দুধ মিশিয়ে দু’বেলা খেতে দিয়ে তার উপকারিতা প্রত্যক্ষ করুন। কোনো কোনো চিকিৎসকের মতে যক্ষ্মা, অর্শ, গ্রহণী (একটানা পেটের অসুখ) প্রভৃতি অসুখেও চালকুমড়া খেলে উপকার হয়।

৭. শুল ব্যাথায়: এ ব্যথা পেটের যে কোনো জায়গায় হোক না কেনও, এই কুমড়ার শাসকে শুকিয়ে পুড়িয়ে (অন্তর্ধুম) তার চূর্ণ (আধ গ্রাম মাত্রায়) গরম জল খেলে উপশম হবেই।

৮. ধী শক্তি রক্ষায়: দুধ আর তামাক যেমন একসঙ্গে খাওয়ার বয়স এককালে থাকাটা হাস্যকর, সেই রকম মাথার কাজ করতে হয় অথচ শুক্রকে ধরে না রাখার মনোবৃত্তি; এক্ষেত্রে তার পরিপূরক হিসেবে কুমড়ার শাঁস বাটা (জল সমেত) মধুর সঙ্গে সরবত করে খেতে হয়; তবে সংযম করে দ্বিতীয়টি সহজ বেগ খেতে হয়।

৯. কামজ উন্মাদ: সব রকম উন্মাদ এক ধারার চিকিৎসায় সারে, এ কথা আয়ুর্বেদ বলেনি। একটি সাধারণ ক্ষেত্র হিসাবে এর বীজের শাঁস বেটে মধু সঙ্গে খেতে দিতে হয়। যেহেতু উন্মাদের ক্ষেত্র শরীরের অন্যান্য স্থানে হয় না।

১০. ক্রিমিতে: এর বীজের শাস ২ গ্রাম আন্দাজ বেটে জলসহ খেতে হয়। চাল কুমড়ার বীজ কৃমি নাশ করে।

১১. পেট ফাপা ও প্রস্রাব ভালো হচ্ছে না: এ ক্ষেত্রে কুমড়োর রস পেটে মালিশ করলে ১০ থেকে ১৫ মিনিটের মধ্যে দুটোই সহজ হয়।

১২. জন্ডিসে: চাল কুমড়া হলো পাণ্ডু রোগ বা জনডিসের সবচেয়ে সস্তা ও সুলভ ওষুধ। চাল কুমড়ার টুকরো রোদে শুকিয়ে গুঁড়া করে খেলে বা টাটকা চাল কুমড়ার তরকারি রান্না করে খেলে জনডিস তাড়াতাড়ি সেরে যায়। এ ছাড়া চালকুমড়ার মোরব্বা বা পেঠা এবং কবিরাজি মতে তৈরি অবলেহ খেলেও উপকার পাওয়া যায়।

১৩. উন্মাদনায়: মৃগী ও উন্মাদ রোগের পক্ষেও এটি উপকারী। চালকুমড়ার মোরব্বা নিয়মিত খেলে মাথা গরম হওয়া কমে, মাথা ঘোরা সেরে যায়, উন্মাদ রোগ সারে এবং খুব ভাল ঘুম হয়।

১৪. বিভিন্ন অসুখে: চাল কুমড়ার রস একটু চিনি ও জাফরানের সঙ্গে পিষে খেলে অজীর্ণ ভালো হয়, পুষ্টি বাড়ে, ফুসফুস ভালো থাকে এবং বিভিন্ন রোগে উপকার পাওয়া যায়।

১৫. ডায়াবেটিসে: ডায়বেটিসে চালকুমড়ার রস খাওয়া অতি হিতকর। চাল কুমড়ার মোরব্বা, হালুয়া, অবলেহ ও চাল কুমড়ার বীজের লাড্ডু অনেক রোগ সারিয়ে তোলে।

তথ্যসূত্রঃ আয়ুর্বেদাচার্য শিবকালী ভট্টাচার্য রচিত,
চিরঞ্জীব বনৌষধি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন