1. amd477271@gmail.com : admin : প্রভাত সংবাদ
  2. mdjoy.jnu@gmail.com : dainikbangladesh : Shah Zoy
শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ১২:৩৬ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
কুমারখালীতে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মৌসুমী আক্তার প্রচারণায় এগিয়ে কুমারখালীতে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী তুষারের ব্যাপক জনসংযোগ কুমারখালীর গড়াই রেল ব্রিজের নীচ থেকে এক অজ্ঞাত ব্যক্তির বিবস্ত্র মরদেহ উদ্ধার মহাসড়কে দুর্ঘটনা হ্রাস ও নিরাপত্তা নিশ্চিত কল্পে কুমিল্লা রিজিয়ন কর্তৃক বিশেষ অভিযানে প্রসিকিউশন ১৭০টি, থ্রি হুইলার আটক ৪০টি ও দেড় কাজি গাঁজা সহ গ্রেফতার ১ কুমিল্লা রিজিয়নের ২২ থানার পুলিশ সদস্যদের জন্য ওরস্যালাইন, গ্লুকোজ ও পানি দিচ্ছেন অতিরিক্ত ডিআইজি মো: খাইরুল আলম আতাউর রহমান আতা ভাই কে আবারো জয়যুক্ত করার লক্ষ্যে জীবনের শ্রেষ্ঠ সময়টুকু দিয়ে কাজ করে চলেছেন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আব্দুল কুদ্দুস

দুই’শ মসজিদের ক্যালিগ্রাফি করেছেন অনিল কুমার

  • প্রকাশিত: বুধবার, ৭ জুলাই, ২০২১
  • ১৫৮ বার পড়া হয়েছে

প্রভাত সংবাদ ডেস্ক : একজন হিন্দুধর্মাম্বলী হওয়া সত্ত্বেও অনিল কুমার চৌহান গত ৩০ বছরে দুই’শরও বেশী মসজিদে পবিত্র কোরআনের আয়াতের ক্যালিগ্রাফি করেছেন।

না কেউ তাকে শেখায়নি ক্যালিগ্রাফি। নিজে নিজেই লিপির কলা ও কৌশল আয়ত্ত করেছেন। তারপর তাঁর ৩০ বছরের পেশাদারী জীবনে ২০০টিরও বেশি মসজিদের দেওয়ালে কুরআনের আয়াত আরবিতে ক্যালিগ্রাফি করেছেন। হায়দরাবাদের এই স্বশিক্ষিত শিল্পী প্রথম জীবনে উর্দুতে সাইনবোর্ড লিখে উপার্জন করতেন।

তাঁর কথায়,”আমি দরিদ্র হিন্দু পরিবারের সন্তান। আর্থিক কারণে দশম শ্রেণির পর পড়াশোনা ছেড়ে দিতে হয়। তবে আমি আঁকায় ভাল ছিলাম। তাই এটাকেই পেশা হিসাবে বেছে নিয়েছিলাম।” শুধু মসজিদ নয়, চৌহান ৩০টি মন্দিরে দেব-দেবীর ছবি এঁকেছেন। অসংখ্য দরগা ও মঠের দেওয়ালেও শোভা পাচ্ছে তাঁর হস্তশিল্প।
তিনি জানান, ১০০টিরও বেশি মসজিদে ক্যালিগ্রাফি করার জন্য তিনি সাম্মানিক পেয়েছেন, তবে বহু মসজিদে বিনামূল্যে আরবি লিপি খোদাই করে দিয়েছেন। মসজিদের সঙ্গে তিনি এক আধ্যাত্মিক সংযোগ অনুভব করতেন, তার ফলে সাম্মানিক দাবি করতে তাঁর মন চাইত না। আরবি ও উর্দু ভাষা শিক্ষার জন্য চৌহান কোনও ইসলামিক স্কুল বা মাদ্রাসায় যাননি। কাজ করতে করতে তিনি উর্দু লিখতে ও পড়তে শিখেছেন। ধীরে ধীরে মানুষ তাঁর প্রতিভার কদর করতে শুরু করে এবং হায়দরাবাদের বিভিন্ন সৌধে কুরআনের আয়াত লেখার ডাক পেতে শুরু করেন। এই শহরের অধিকাংশ দোকানদার মুসলিম। তাই সাইনবোর্ডও লিখতে হত উর্দুতে।

ফলত, এই ভাষা শিখে নিতে মনস্থির করেন চৌহান। এ সব ৩০ বছর আগের কথা। এখন যদিও অধিকাংশ সাইনবোর্ড ইংরেজিতে লেখা হয়। যাইহোক, উর্দু না বুঝেই তিনি প্রথমে ক্যালিগ্রাফি করতেন এবং পরে এই ভাষার প্রেমে পড়ে যান। এমনটাই জানালেন শিল্পী চৌহান। তিনি আরো জানান,শিল্পের কোনও ধর্ম নেই। ঈশ্বর, আল্লাহ, যিশু–সবই এক। আমরা ঈশ্বরের সন্তান।

আমার এই যাত্রাপথ একেবারে কুসুমাস্তীর্ণ ছিল না। হিন্দু হওয়ার জন্য বাধার সম্মুখীন হতে হয়েছে। এরপর হায়দরাবাদের জামিয়া নিজামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় ফতোয়া দিয়ে বলে যে, চৌহানের এই কাজ করায় কোনও অসুবিধা নেই। কুরআনের সুরা ইয়াসিন ক্যালিগ্রাফি করেন তিনি। সেই ক্যানভাস আজও শোভা পাচ্ছে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল গ্যালারিতে। চৌহান বলেন,”আমি বিশ্বাস করি, শ বন্ধুই মুসলমান। আমরা একসঙ্গে খাওয়াদাওয়া করি, ঘুরে বেড়াই, মাহফিলে যাই।”

বি/বি/নি

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন