1. amd477271@gmail.com : admin : প্রভাত সংবাদ
  2. mdjoy.jnu@gmail.com : dainikbangladesh : Shah Zoy
বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০৬:১৩ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
কুমারখালীতে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মৌসুমী আক্তার প্রচারণায় এগিয়ে কুমারখালীতে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী তুষারের ব্যাপক জনসংযোগ কুমারখালীর গড়াই রেল ব্রিজের নীচ থেকে এক অজ্ঞাত ব্যক্তির বিবস্ত্র মরদেহ উদ্ধার মহাসড়কে দুর্ঘটনা হ্রাস ও নিরাপত্তা নিশ্চিত কল্পে কুমিল্লা রিজিয়ন কর্তৃক বিশেষ অভিযানে প্রসিকিউশন ১৭০টি, থ্রি হুইলার আটক ৪০টি ও দেড় কাজি গাঁজা সহ গ্রেফতার ১ কুমিল্লা রিজিয়নের ২২ থানার পুলিশ সদস্যদের জন্য ওরস্যালাইন, গ্লুকোজ ও পানি দিচ্ছেন অতিরিক্ত ডিআইজি মো: খাইরুল আলম আতাউর রহমান আতা ভাই কে আবারো জয়যুক্ত করার লক্ষ্যে জীবনের শ্রেষ্ঠ সময়টুকু দিয়ে কাজ করে চলেছেন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আব্দুল কুদ্দুস

বায়তুল মোকাররম মসজিদ তৈরীর ইতিকথা

  • প্রকাশিত: বুধবার, ২৮ জুলাই, ২০২১
  • ১৪২ বার পড়া হয়েছে

প্রভাত সংবাদ ডেস্ক : বাংলাদেশের জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম ষাট বছরেরও বেশি সময় আগে একটি পরিবারের উদ্যোগে প্রায় সাড়ে আট একর জমির ওপর নির্মিত হয় এই মসজিদটি। এখন সেটি বাংলাদেশের মুসলিমদের কাছে মর্যাদার স্থান হয়ে উঠেছে। মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে মক্কার কাবা ঘরের আদলে চারকোনা আকৃতির।

পুরোনো এবং নতুন ঢাকার মিলনস্থল পল্টন এলাকায় এই মসজিদে একসঙ্গে চল্লিশ হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারেন। ১৯৫৯ সালের কথা। দেশে তখন চলছিল পাকিস্তানি সামরিক শাসন। দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে বাওয়ানী জুট মিলস গ্রুপের মালিক হাজী আবদুল লতিফ বাওয়ানী পূর্ব পাকিস্তান সামরিক শাসক মেজর জেনারেল ওমরাও খানের নিকট বায়তুল মোকাররম মসজিদ নির্মাণের ইচ্ছা প্রকাশ করেন। ওমরাও খান মসজিদ নির্মাণের ব্যাপারে কোনো প্রকার অনীহা প্রকাশ না করে সরকারের সক্রিয় সহযোগিতার আশ্বাস দেন। ১৯৫৯ সালের ২৭ এপ্রিল ঢাকায় আব্দুল লতিফ বাওয়ানীর বাড়িতে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বায়তুল মোকাররম মসজিদ নির্মাণের এ সভায় উপস্থিত ছিলেন শিল্পপতি জি.এ.মাদানী, হাজী আব্দুল লতিফ বাওয়ানী, এম.এইচ. আদমজী, এস. সাত্তার, মুহাম্মদ সাদিক, এ জেড.এন. রেজাউল করিম, ইয়াহিয়া আহমদ বাওয়ানী ও মেজর জেনারেল ওমরাও খান। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে মসজিদ নির্মাণের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এখন যে জায়গায় মসজিদটি অবস্থিত সেখানে আগে ছিল বিশাল একটি পুকুর। এই পুকুরটি সকলের নিকট পল্টন পুকুর নামে পরিচিত ছিল। পুকুর ভরাট করে মসজিদের নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়।

প্রথম থেকেই বায়তুল মোকাররম মসজিদ সরকার নিয়ন্ত্রণ করে আসছে। পুকুর ভরাট হলে ১৯৬০ সালের ২৭ জানুয়ারি পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি ফিল্ড মার্শাল মোহাম্মদ আইয়ুব খান মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। বায়তুল মোকাররম মসজিদের ডিজাইন করেন প্রকৌশলী আবুল হোসেন থারিয়ানী। প্রকৌশলী মঈনুল হোসেন বায়তুল মোকাররম মসজিদের নির্মাণ কাজের তদারকি করেন। ১৯৬৩ সালে বায়তুল মোকাররম মসজিদের প্রথম পর্বের নির্মাণ কাজ শেষ হয়। বায়তুল মোকাররম মসজিদে প্রথম জুমআর নামাজ আদায় করা হয় সেই বছরেরই ২৫ জানুয়ারি শুক্রবার। আর তারাবীহ নামাজ হয় ২৬ জানুয়ারি শনিবার ১৯৬৩ সালে।

বায়তুল মোকাররম মসজিদের প্রথম খতিব ছিলেন মাওলানা আবদুর রহামন বেখুদ (রহ.)।
নি/আই/২৪/ভো/কা

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন