1. amd477271@gmail.com : admin : প্রভাত সংবাদ
  2. mdjoy.jnu@gmail.com : dainikbangladesh : Shah Zoy
বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০৭:৫৯ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
কুমারখালীতে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মৌসুমী আক্তার প্রচারণায় এগিয়ে কুমারখালীতে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী তুষারের ব্যাপক জনসংযোগ কুমারখালীর গড়াই রেল ব্রিজের নীচ থেকে এক অজ্ঞাত ব্যক্তির বিবস্ত্র মরদেহ উদ্ধার মহাসড়কে দুর্ঘটনা হ্রাস ও নিরাপত্তা নিশ্চিত কল্পে কুমিল্লা রিজিয়ন কর্তৃক বিশেষ অভিযানে প্রসিকিউশন ১৭০টি, থ্রি হুইলার আটক ৪০টি ও দেড় কাজি গাঁজা সহ গ্রেফতার ১ কুমিল্লা রিজিয়নের ২২ থানার পুলিশ সদস্যদের জন্য ওরস্যালাইন, গ্লুকোজ ও পানি দিচ্ছেন অতিরিক্ত ডিআইজি মো: খাইরুল আলম আতাউর রহমান আতা ভাই কে আবারো জয়যুক্ত করার লক্ষ্যে জীবনের শ্রেষ্ঠ সময়টুকু দিয়ে কাজ করে চলেছেন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আব্দুল কুদ্দুস

  • প্রকাশিত: রবিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২৩
  • ২৮ বার পড়া হয়েছে

আলামত গায়েব করায় এসআই’র বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

ক্রাইম রিপোর্টার

কুষ্টিয়ার মিরপুরে আলোচিত হত্যাকাণ্ডের ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হওয়া গুরুত্বপূর্ণ আলামত গায়েব করে দেওয়ায় পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) রবিউল আওয়ালের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। রবিউল আওয়াল বর্তমানে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা থানায় এস আই হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

গত ২ আগস্ট কুষ্টিয়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট লাবনী সুলতানা পলি প্রতিবেদন গ্রহণ করে তার বিরুদ্ধে এ পরোয়ানার জারি করেন। রবিবার (১৩ আগস্ট) সকালে আইনজীবী আব্দুল্লাহিল মারুফ এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০২২ সালের ৯ জুলাই রাতে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার সদরপুর ইউনিয়নের চক গ্রামে সামাজিক আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব শত্রুতার জের ধরে শওকত আলীকে (৫০) নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করে আসামিরা। এসময় ঘটনাস্থলে মামলার ২ নম্বর এজাহারভুক্ত আসামি ওয়াকিবুল ইসলাম লিপসনের মোবাইল ফোন পড়ে যায়। সেই ফোন ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে বাদীপক্ষ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই রবিউল আওয়ালকে দেন।

মামলার গুরুত্বপূর্ণ আলামত মোবাইল ফোন নিজ হেফাজতে নিয়ে জব্দ তালিকায় অন্তর্ভূক্ত না করে তিনি মোবাইল ফোনটি মিরপুর থানার ডেক্স থেকে চুরি হয়েছে মর্মে মিথ্যা বক্তব্য উপস্থাপন করেন। তিনি অসৎ উদ্দেশ্যে মামলার অন্যতম আলামত ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হওয়া মোবাইল ফোনটি সুকৌশলে জব্দতালিকা অন্তর্ভূক্ত না করে আলামতটি বিলুপ্ত করেন। পরবর্তীতে বাদীপক্ষের আইনজীবী বিষয়টি কুষ্টিয়া পুলিশ সুপারকে অবগত করিলে আইও রবিউল আওয়ালের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা রুজু হয় এবং একই সাথে বিষয়টি আদালতের নজরে আনলে আদালত কুষ্টিয়ার সিআইডি পুলিশকে তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশ দেন।

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) মামলাটি তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেয়ে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করলে বিচারক তার বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি করেন। আদালত গত ০২ আগস্ট  তদন্ত প্রতিবেদন গ্রহন করে এসআই রবিউল আওয়ালের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধি ২০১ ধারায় আপরাধ আমলে নিয়ে তার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট ইস্যু করেন।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী মারুফ বলেন, এস আই রবিউল আওয়াল শুধুমাত্র দায়িত্বে অবহেলা করলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা সীমাবদ্ধ থাকত। কিন্তু তিনি হত্যা মামলার ২ নম্বর আসামিকে এই মামলার দায় থেকে বাঁচানোর জন্য ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হওয়া আলামত মোবাইল ফোন গায়ের করে সরাসরি ফৌজদারি অপরাধ করেছেন। যাহা দণ্ডবিধির ২০১ ধারার সরাসরি লংঘন করেছেন। বিভাগীয় ও নিয়মিত মামলা চলাকালীন সময়ে সে চাকুরীতে বহাল রয়েছেন। আমি তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

এ বিষয়ে ভেড়ামারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জহিরুল ইসলাম বলেন, আদালতের দেওয়া আদেশের বিষয়টি আমি এখনও জানি না। আদালতের আদেশ হাতে পাওয়া মাত্র আমরা আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহন করবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন